০৫:৪২ পিএম | টাঙ্গাইল, রোববার, ২৪ মার্চ ২০১৯
প্রতিষ্ঠাতা মরহুম আব্দুল ওয়াহেদ মিয়া

যমুনা নদীতে ইলিশ নিধনের মহোৎসব!

অভিজিৎ ঘোষ | টাঙ্গাইল২৪.কম | বুধবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৭ | | ৪৪৫
, টাঙ্গাইল :

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে যমুনা নদী থেকে অবাধে অবৈধভাবে মা ইলিশ নিধনের মহোৎসব শুরু হয়েছে। মৎস্য বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন নদীতে মা ইলিশ ধরার বন্ধে ছোট খাটো কিছু পদক্ষেপ গ্রহন করলেও তা ইলিশ নিধন বন্ধে কার্যকরী কোন ভূমিকা রাখতে পারছে না।

রাতে ও দিনে জেলেরা যমুনা নদীতে অবাদে কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ ধরছে। প্রতিদিন গড়ে টাঙ্গাইল সদর, ভূঞাপুর ও কালিহাতী উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকার যমুনা থেকে প্রায় ২০ থেকে ২৫ টন মা ইলিশ ধরা হচ্ছে। জেলেরা অভিযোগ করেন নদীতে ইলিশ মাছ ধরতে নৌ পুলিশ ও মৎস্য কর্মকর্তাদের টাকা ও মাছ দিতে হয়।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলা ও কালিহাতী উপজেলার যমুনা নদীতে দিনে রাতে অবাদে ধরা হচ্ছে মা ইলিশ। প্রতিদিন প্রায় ৪শতাধিক জেলে যমুনা নদী থেকে গড়ে ১৮ থেকে ২০ টন মা ইলিশ মাছ ধরছে।

পরবর্তিতে ইলিশগুলো কয়েকটি পয়েন্টে জেলেরা একত্রি হয়ে সাধারন মানুষ ও মাছ ব্যবসায়ীদের কাছে প্রতি কেজি ইলিশ মাত্র বিক্রি করছে দুইশ থেকে তিনশ টাকা পর্যন্ত।

কালিহাতী উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু সংলগ্ন গোরিলাবাড়ি, বেলটিয়ার মুকতলা নামকস্থানে হাট বসিয়ে প্রকাশ্যে বিক্রি করা হচ্ছে ইলিশ। প্রতিদিন ভোররাতে এসব জায়গায় ক্রেতারাও ভীড় করেন মাছ কিনতে।

এছাড়াও সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার বেলুর চর এলাকায় শত শত নৌকাযোগে জেলেরা ইলিশ নিয়ে সেখানে বিক্রি করছে। প্রকাশ্যে যমুনা নদীতে মাছ ধরা ও বিক্রি করলেও অজ্ঞাত কারনে মৎস্য বিভাগ বা নৌ পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

কালিহাতী উপজেলার গোহালিয়াবাড়ি ইউনিয়নের আফজালপুর ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুর রাজ্জাকের ছত্রছায়ায় জেলেরা যমুনা নদী থেকে প্রকাশ্যে অবাদে মাছ ধরছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এজন্য নৌকা প্রতি ওই ইউপি সদস্যকে টাকাও দিতে হয় বলে জানান জেলেরা।

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার বেলুর চরে মাছ বিক্রি করতে আসা জেলেরা জানান, মাছ ধরা নিষিদ্ধ জেনেও পেটের দায়ে মা ইলিশ ধরে বিক্রি করছি। সরকারিভাবে কোন অর্থ সহায়তা পাইনি। এছাড়া মাছ ধরতে পুলিশ ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের টাকা ও মাছ দিতে হয়। অনেক সময় প্রশাসনের ভয় দেখিয়ে নদী থেকেই মাছ জোর করে ছিনিয়ে নেয়া হয়।

গোহালিয়াবাড়ির আফজালপুর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাক জানান, আফজালপুর পুরো গ্রামটাই নদীর মধ্যে। এখানকার সবমানুষই মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে। সরকারিভাবে কোন অর্থসহায়তা তারা পায়নি। মেম্বার হিসেবে সবাইকে আমার সহযোগিতা করতে হয়। ইলিশ মাছ ধরা বন্ধের জন্য যদি সরকার আগে থেকে জেলেদের আর্থিক সহায়তা করতো তাহলে যমুনা নদী থেকে মা ইলিশ ধরা বন্ধ হত।

বঙ্গবন্ধু সেতু নৌপুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাবর আলী জানান, স্বল্পসংখ্যক লোকবল দিয়ে রাতে যমুনা নদীতে অভিযান পরিচালনা করা খুবই কষ্টের। এছাড়া ফাঁড়িতে বরাদ্দকৃত বোডটি (নৌকা) অনেকদিন যাবত অকেজো হয়ে পড়ে আছে। বোড সংকটের কারনে মাছ ধরা বন্ধে অভিযান পরিচালনা করা যাচ্ছে না। তারপরও নৌপুলিশের পক্ষ থেকে নদীতে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে বলেও তিনি দাবি করেন।

ভূঞাপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাসুম বিল্লাহ জানান, ভূঞাপুর যমুনা নদীতে মা ইলিশের মৎস্য জোন না থাকায় জেলেরা কোন সরকারি অর্থসহায়তা পাচ্ছে না। সারাদেশের ন্যায় ভূঞাপুরেও ইলিশ ধরা বন্ধে অভিযান চালানো হচ্ছে।

কালিহাতী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল হালিম জানান, মা ইলিশ ধরার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়তই অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে ঘটনাস্থলে গিয়ে কোন জেলেদের পাওয়া যাচ্ছে না।

টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক খান মো. নুরুল আমিন জানান, ইলিশ রক্ষায় বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। যমুনা নদীকে ইলিশ জোন ঘোষণা করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আর তা করা গেলে জেলেরা আগামী বছর থেকে সব রকমের সুবিধা পাবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

গোপালপুরে বিশ্ব যক্ষা দিবস পালিত মহাসড়কের কালভার্ট মাটি দিয়ে ভরাট মির্জাপুরে নানা আয়োজনে বিশ্ব যক্ষা দিবস পালিত ‘‘সকলের জন্য সুপেয় পানির প্রাপ্যতা নিশ্চিতের দাবিতে মান বিদেশী শাড়ীর দৌরাত্ম্যে ভালো নেই টাঙ্গাইলের তাঁতীরা বিশ্ব যক্ষা দিবস পালন সড়ক দুর্ঘটনায় ২ যুবক নিহত আ’লীগ প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভার প্যান্ডেল পুড়িয়ে দিয়েছ নেতাকর্মী-সমর্থক না থাকায় নৌকার সভা স্থগিত সখীপুর প্রেসক্লাব’র নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন কারাবন্দিদের বৈদ্যুতিক পাখা দিল লায়ন্স ক্লাব স্টাইলে চুল কাটার উপর নিষেধাজ্ঞার নোটিশ প্রত্যাহার নির্বাচন বাতিল চেয়ে  নৃ-গোষ্ঠী গারো সম্প্রদায়ের মানববন্ ট্রেনে কাটা পড়ে নারী নিহত  একই স্থানে ২ পক্ষের সভা, ১৪৪ ধারা জারি

© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

নির্মান ও ডিজাইন : মঈনুল ইসলাম, পাওয়ার বাই: জিরোওয়ানবিডি